Youtube google+ twitter facebook Bangla Font Help

কীর্তনখোলা-১০ লঞ্চ তৈরি করে তাক লাগিয়ে দিলো স্কুলছাত্র

৮:৩৮ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৩, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল:: চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জে প্রত্যন্ত অঞ্চলের এক মেধাবী শিক্ষার্থী মেহরাজ নিজের হাতে বিশাল আকারের লঞ্চ তৈরি করে তাক লাগিয়ে দিয়েছে এলাকাবাসীকে। প্রতিদিনই লঞ্চটি দেখতে এলাকার শতশত মানুষকে ভিড় করতে দেখা যায়। লঞ্চটির নামকরণ করা হয়েছে ‘কীর্তনখোলা-১০’।

বাবার সাথে অতীতে একবার নদীপথে কীর্তনখোলা লঞ্চে বরিশাল যাতায়াত করে মেহরাজ। এরপর থেকেই লঞ্চ তৈরিতে তার মাঝে আগ্রহ দেখা দেয়। একপর্যায়ে বাবার অনুপ্রেরণায় ও সহযোগিতায় নিজের মেধা খাটিয়ে ককসিট, মোটর, লাইটিং ও ব্যাটারি দিয়ে নিজের হাতে তৈরি করে লঞ্চটি।

কীর্তনখোলা-১০ তৈরি করা ১১ বছর বয়সি মেহরাজের পুরো নাম সাইদুল ইসলাম মেহরাজ। গ্রামের বাড়ি চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৬ নম্বর গুপটি ইউনিয়নের ষোলদানা গ্রামে। সে হাজী বাড়ির সোহেল রানার বড় ছেলে। বর্তমানে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়াশোনা করছে। তার প্রখর মেধা ও পারদর্শিতা নজর কেড়েছে এলাকাবাসীর।

মেহরাজ স্থানীয় সাংবাদিকদের জানায়, লঞ্চটি তৈরি করতে ব্যবহার করা হয়েছে ককসিট, ব্যাটারিচালিত মোটর, ম্যাজিক লাইট এবং গাম। লঞ্চের দৈর্ঘ ৫ ফুট, উচ্চতা ১০ ইঞ্চি, প্রস্থ ৯ ইঞ্চি। এটি দেখতে অবিকল বরিশাল-ঢাকা নৌরুটে চলাচলরত ‘কীর্তনখোলা- ১০’র মতো।

ব্যাটারিচালিত লঞ্চটি নিজবাড়ির পুকুরে প্রায়শই চালাচ্ছে শিশুশিক্ষাথী মেহরাজ। লঞ্চটিতে ব্যবহার করা বিভিন্ন আলোকসজ্জা ও মিউজিক বাতির ঝলকানি মিটমিট করছে। নিখুত হাতে তৈরি করা লঞ্চটির ভেতরে রয়েছে মাস্টার ও যাত্রীদের কেবিন। যার নির্মাণশৈলী ও সৌন্দর্য সবার নজর কেড়েছে। লঞ্চটি দেখতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিনই লোকজন আসতে দেখা যায়।

উপজেলার বড়ালীয়া গ্রামের বাসিন্দা হারুন মাঝি সাংবাদিকদের জানান, তিনি চাকরির সুবাদে বরিশালের লঞ্চে ভ্রমণ করেন। তার পাশের এলাকার এক শিশু বরিশালের লঞ্চ বানিয়েছে জানতে পেরে তিনি দেখতে এসেছেন। মেহরাজের লঞ্চটি দেখে তার মনে হচ্ছে কীর্তনখোলা-১০ লঞ্চটি কেউ এখানে ভাসিয়ে দিয়েছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য (মেম্বর) মোখলেসুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার ওয়ার্ডে একটি শিশু লঞ্চ তৈরি করেছে শুনে মানুষ দেখতে আসে। তারা প্রশংসা করে। তাই আমিও দেখতে এসেছি। শিশুটির প্রতিভা দেখে এলাকার সবাই মুগ্ধ।’

সাইদুল ইসলাম মেহরাজ সাংবাদিকদের জানায়, কোনো কিছু দেখে সহজেই আয়ত্ত করতে পারে সে। ভালো লাগে নতুন কিছু করতে। লঞ্চ তৈরি করা তার শখের মধ্যে একটি। এর আগে সে উড়োজাহাজ তৈরি করেছে। মেহরাজ ভবিষ্যতে মেরিন ইঞ্জিনিয়ার হতে চায়।

শিশুটির বাবা সোহেল রানা সাংবাদিকদের বলেন, ‘তিন সন্তানের মধ্যে মেহরাজ বড়। সে আমার সাথে নদীপথে ভ্রমণে গিয়েছিল। লঞ্চ দেখে বিভিন্ন কৌতূহলী প্রশ্ন করে। আমি সাধ্যমত উত্তর দিয়েছি। কয়েকদিন পর থেকেই তাকে লঞ্চ তৈরিতে ব্যস্ত দেখা যায়। আমিও তার আগ্রহে সাড়া দেই। মেহরাজ যেন ভবিষ্যতে মেরিন ইঞ্জিনিয়ার হয়ে দেশের জন্য ভলো কিছু করতে পারে। তাই আমি সবার দোয়া চাই।’

[addthis tool="addthis_inline_share_toolbox_nev1"]

পাঠকের মন্তব্য

rss goolge-plus twitter facebook
Design & Developed By:

উপদেষ্টা মন্ডলির সভাপতি- ফারজানা ইয়াসমিন রিমি

প্রকাশক ও সম্পাদক  : এম. জাহিদ 

বার্তা- সম্পাদক : মেহেদী  হাসান
সহ- ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: শহিদুল্লাহ সুুুমন

  • বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়-

ভূইয়া ভবন, ৩য় তলা

ফকিরবাড়ী রোড, বরিশাল।

  • যোগাযোগ- ০১৭৯২০৫৯০৩২

ই-মেইল: mjahidbsl@gmail.com

টপ
  ঢাবি’র অনলাইন ক্লাসে সন্তুষ্ট ২.৭ ভাগ শিক্ষার্থী : জরিপ   চলতি সপ্তাহে ঘোষণা দেয়া হবে এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস না পরীক্ষা   ঢাবির ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলোড স্থগিত   টিকা দিয়েই স্কুল-কলেজ খুলে দেব : প্রধানমন্ত্রী   মঠবাড়িয়ায় গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে কলেজছাত্রের মৃত্যু   রাতের আধারে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর সাথে ঘটলো কি?   কর্মসূচি প্রত্যাহার হলেও উত্তাপ কমেনি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে   জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি’র ফল   বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বহিষ্কার   আজ থেকে সরকারি মাধ্যমিকে ভর্তির আবেদন শুরু   এবার পরীক্ষা নয়, লটারির মাধ্যমে স্কুলে ভর্তি: শিক্ষামন্ত্রী   মাধ্যমিকে বার্ষিক পরীক্ষা বাতিল   ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা হবে সশরীরে   প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ   ২৫ ডিসেম্বরের মধ্যে এইচএসসির ফল   উন্নয়নের ধারাকে ধরে রাখতে শিক্ষার বিকল্প নেই   ১৭ অক্টোবর থেকে কিন্ডারগার্টেন খোলার দাবি   আগের ক্লাসের ফলের ভিত্তিতে মাধ্যমিকে পরবর্তী ক্লাস!   আসামিরা গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাবেন ঢাবির সেই ছাত্রী   করোনাঃ এসএসসি পরীক্ষা আয়োজন অনিশ্চিত