Youtube google+ twitter facebook Bangla Font Help

বরগুনায় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘরে এখনো উঠতে পারেনি ৩৫০ পরিবার

১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১১, ২০২১

বরগুনার আমতলীতে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘরে উঠতে পারেনি ৩৫০ পরিবার। নির্মাণাধীন ঘরের পাশে ছাপরা দিয়ে ঝড়-বৃষ্টিতে ভিজে তারা মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

বরগুনার আমতলীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বরাদ্দে অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামানকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে (ওএসডি) শাস্তিমূলক বদলি এবং তাকে শোকজ করা হয়েছে। মূলত তার অনিয়ম আর দুর্নীতির কারণেই প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর অধীনে দ্বিতীয় ধাপে উপজেলায় হতদরিদ্র ভূমিহীনদের জন্য বরাদ্দ ৩৫০টি ঘরের নির্মাণ কাজ যথা সময়ে শেষ করতে না পারায় ওই ঘরগুলোতে উঠতে পারছে না হতদরিদ্র ভূমিহীন পরিবারগুলো।

আমতলী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ প্রকল্প- ২ এর অধীনে দ্বিতীয় ধাপে উপজেলায় হতদরিদ্র ভূমিহীনদের জন্য বরাদ্দ ৩৫০টি ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে গুলিশাখালী ইউনিয়নে ১১০টি, কুকুয়া ইউনিয়নে ৩০টি, আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নে ২৫টি, হলদিয়া ইউনিয়নে ২৩টি, চাওড়া ইউনিয়নে ৭২টি, আমতলী সদর ইউনিয়নে ৮১টি ও আড়পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের ৯টি ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ায় আমতলী সদর ইউনিয়নে ৮১টি ঘরের মধ্যে ২৫টি এবং গুলিশাখালী ইউনিয়নে ১১০টি ঘরের মধ্যে ২৫টি মোট ৫০টির মত ঘরে হতদরিদ্র ভূমিহীন পরিবারগুলো উঠতে পারলেও বাকি ৫টি ইউনিয়নের ৩০০টি ঘরে হতদরিদ্র ভূমিহীন পরিবারগুলো উঠতে পারেনি। তারা নির্মাণাধীন ঘরের পাশে ছাপরা দিয়ে ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের গুলিশাখালী ও নাইয়াপাড়া গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, এ ইউনিয়নে বরাদ্দকৃত ১১০টি ঘরের অধিকাংশের নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। ঘর পাওয়া অনেকেই নির্মাণাধীন ঘরের পাশে ছাপরা দিয়ে ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে বসবাস করে আসছে। বেশ কিছু ঘরের কাজ কেবল শুরু হইছে। এখনো অনেক ঘরের ছাউনিসহ দরজা জানালা লাগানো বাকি রয়েছে। আবার অল্প কয়েকটি ঘরের ছাউনি দেয়া হলেও পলেস্তারা ও রংয়ের কাজ বাকি আছে। বর্তমানে বৃষ্টির কারণে অনেক ঘরের কাজ বন্ধও রয়েছে।

ঘর পাওয়া ভুক্তভোগী গুলিশাখালীর নাইয়াপাড়া গ্রামের হতদরিদ্র ভূমিহীন আনোয়ার ঘরামী ও ফিরোজা বেগম জানায়, কবে যে এই ঘরগুলোর নির্মাণ কাজ শেষ হবে তা তাদের জানা নেই। এখন বর্ষার কারণে নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকায় উপকারভোগী পরিবারগুলো নির্মাণাধীন ঘরের পাশে টিনের ছাপরা দিয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে তাদের মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে।

গুলিশাখালী গ্রামের বাসুদেব দাশ বলেন, আমার বরাদ্দকৃত ঘরের কাজ চলমান থাকায় আমি আমার স্ত্রী এক ছেলে দুই কন্যাকে নিয়ে নির্মাণাধীন ঘরের পাশে ছাপরা দিয়ে আজ দুই মাস ধরে বসবাস করছি।

নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই একই ইউনিয়নের হরিদ্রাবাড়িয়া গ্রামের হামিদা বেগমের ঘরের সামনের পিলার ধসে পড়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। তবে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ অ্যাডভোকেট মো. নূরুল ইসলাম মিয়া এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘ওই গ্রামে হামিদা বেগম নামে কাউকেই কোন ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, আমার ইউনিয়নের ১১০টি ঘরের মধ্যে ২৫টি ঘরে উপকারভোগী পরিবারগুলো উঠলেও বাকি ঘরগুলোর কাজ চলমান থাকায় সেই ঘরে উপকারভোগী পরিবারগুলো উঠতে পারেনি। বৃষ্টিতে তারা কিছুটা কষ্টের মধ্যে আছেন।

আমতলী সদর ইউনিয়নে গিয়ে দেখা গেছে, এ ইউনিয়নে বরাদ্দ ৮১টি ঘরের মধ্যে ২৫টি ঘরে উপকারভোগী পরিবারগুলো পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস শুরু করছেন। বাকি ঘরগুলোর নির্মাণ কাজ চলমান আছে। অল্প কয়েক দিনের মধ্যে কাজ শেষ হবে বলে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোতাহার উদ্দিন মৃধা জানায়।

আমতলী সদর ইউনিয়নের নতুন ঘর পাওয়া উপকারভোগী চলাভাঙ্গা গ্রামের আ. মোতালেব ও দক্ষিণ আমতলী গ্রামের ঝর্ণা বেগম বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দেয়া পাকা ঘরে আমরা এখন পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করি। গরীবের বন্ধু শেখ হাসিনাকে আল্লাহ যেন দীর্ঘায়ু দান করেন।

এছাড়া বাকি ৫টি ইউনিয়নে বরাদ্দকৃত ঘরের নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় কোন উপকারভোগীরা ওই ঘরে উঠতে পারেনি। ওই সকল ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা জানায়, তাদের ইউনিয়নে নির্বাচন থাকার কারণে কিছুদিন পর্যন্ত ঘরগুলোর নির্মাণ কাজ বন্ধ ছিল। এজন্য নির্মাণ কাজ শেষ করা সম্ভব হয়নি। দ্রুতই ঘরগুলোর নির্মাণ কাজ শেষ করে উপকার ভোগীদের মাঝে ঘরগুলো হস্তান্তর করা হবে বলে নিশ্চিত করেছে স্ব-স্ব ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান বলেন, আশ্রয়ণের নীতিমালা অনুযায়ী হতদরিদ্র পরিবারগুলো যাতে দ্রুত ঘরে উঠতে পারে তার যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। নির্মাণ কাজ শেষ হওয়া মাত্রই আমরা উপকারভোগীদের কাছে ঘরের চাবি হস্তান্তর করবো।

[addthis tool="addthis_inline_share_toolbox_nev1"]

পাঠকের মন্তব্য

rss goolge-plus twitter facebook
Design & Developed By:

উপদেষ্টা মন্ডলির সভাপতি- ফারজানা ইয়াসমিন রিমি

প্রকাশক ও সম্পাদক  : এম. জাহিদ 

বার্তা- সম্পাদক : মেহেদী  হাসান
সহ- ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: শহিদুল্লাহ সুুুমন

  • বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়-

ভূইয়া ভবন, ৩য় তলা

ফকিরবাড়ী রোড, বরিশাল।

  • যোগাযোগ- ০১৭৯২০৫৯০৩২

ই-মেইল: mjahidbsl@gmail.com

টপ
  করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলে চলতি বছরেই প্রাথমিকের লিখিত পরীক্ষা   ২৭ সেপ্টেম্বরের পর খুলছে বিশ্ববিদ্যালয়   নবম-দশমে বিভাগ বিভাজন থাকবে না   বিশ্ববিদ্যালয় খোলার বিষয়ে বৈঠক চলতি সপ্তাহেই   ১৮ মাস পর মুখর বরিশালের স্কুল-কলেজ; খুশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা   শিক্ষার্থীদের বেতন নিয়ে অভিভাবকদের যেন চাপ দেওয়া না হয়: শিক্ষামন্ত্রী   করোনা সংক্রমণ বাড়লে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পুনরায় বন্ধ করে দেয়া হবে: শিক্ষামন্ত্রী   সংক্রমণ বাড়লে ফের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী   বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের পরিবহণ-আবাসিক খরচ মওকুফ   শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দ্বার খুলতে বিকেলে বসছে আন্তঃমন্ত্রণালয়ে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক   বরিশালে বন্ধ স্কুল-কলেজে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা শুরু   ১২ সেপ্টেম্বর খেকে খুলবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান   দেশের সব স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়ার ব্যবস্থা হচ্ছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী   আগামী অক্টোবরে স্কুল-কলেজ খোলার ঘোষণা আসতে পারে   আজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে দুই মন্ত্রণালয়ের বৈঠক   যেভাবে নেয়া হবে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা   ঢাবি’র অনলাইন ক্লাসে সন্তুষ্ট ২.৭ ভাগ শিক্ষার্থী : জরিপ   চলতি সপ্তাহে ঘোষণা দেয়া হবে এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস না পরীক্ষা   ঢাবির ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলোড স্থগিত   টিকা দিয়েই স্কুল-কলেজ খুলে দেব : প্রধানমন্ত্রী